নোয়াখালী

ইভ টিজিংয়ের প্রতিবাদে চেয়ারম্যানের ওপর তরুণদের হামলা

নোয়াখালীতে ইভ টিজিংকে কেন্দ্র করে এক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের ওপর একদল তরুণ হামলা করেছে। ভিকটিমের দাবি, ওই তরুণরা স্থানীয় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য। এ ঘটনায় চার কিশোরকে দেশীয় অস্ত্রসহ আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা।

মঙ্গলবার (১১ মে) জেলার সেনবাগ উপজেলার ৯নং নবীপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের গোপালপুর গ্রামের নূরানী মাদরাসা সংলগ্ন কালামিয়ার টেক এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলার শিকার ব্যক্তির নাম মো. বেলায়েত হোসেন সোহেল। তিনি ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান।

আটক তরুণরা হলো- নবীপুর ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামের অন্তর (১৯), বেগমগঞ্জ উপজেলার রফিকপুর গ্রামের টিপু (২৪), আবদুল গনি পারভেজ (২৫) ইমরান হোসেন ওরফে শান্ত (২০)।

নবীপুর ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবদুল ছোবহান জানান, গতকাল মঙ্গলবার দুপুরের দিকে নবীপুর ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের গোপালপুর গ্রামের কিশোরীদের পুকুরে গোসল করতে গেলে ইভটিজিং করে একই গ্রামের রবি (২৩) ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা। সে দীর্ঘদিন থেকে ওই মেয়েদের উত্ত্যক্ত করে আসছিল।

পরে ভুক্তভোগী কিশোরীদের পরিবার বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানকে জানায়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অবহিত করায় ওই দিন বিকেলের দিকে রবি ও কিছু বহিরাগত ইভ টিজিংয়ের শিকার কিশোরীদের বসতঘরে হামলা চালায় এবং তাদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে।

তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে চেয়ারম্যান আমাকে ঘটনাস্থলে পাঠালে বহিরাগত কিশোররা চলে যায়। আমি বিষয়টি চেয়ারম্যানকে জানাই।

ইউপি সদস্য জানান, চেয়ারম্যান এসে দুই পক্ষকে নিবৃত করে। অভিযুক্ত রবিকে চেয়ারম্যানের প্রাইভেট কারে তুলে নেয়। এক পর্যায়ে আকস্মিক রবির দলের ৩০-৩৫ জন সদস্য চেয়ারম্যান ও তার ভাগনে নজরুল ইসলামের (৩৫) ওপর হকিস্টিক, রড দিয়ে হামলা চালায়। এতে চেয়ারম্যান বাম চোখে ও কপালে গুরুত্বর আঘাত পায়। হামলাকারীরা চেয়ারম্যানের ব্যবহৃত প্রাইভেটকারও ভাংচুর করে।

খবর পেয়ে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় চারজনকে আটক করে স্থানীয়রা।

পরে চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। সেখান থেকে রাত পৌনে ১টার দিকে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ৯নং নবীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. বেলায়েত হোসেন সোহেল বলেন, ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে কিশোর গ্যাং বাহিনীর সদস্যরা এ হামলা চালায়। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী বলেন, আটকদের থানায় এনে রাখা হয়েছে। ভুক্তভোগীদের লিখিত এজাহার পেলে তাদের ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হবে।

Author


Discover more from MIssion 90 News

Subscribe to get the latest posts to your email.

সম্পর্কিত সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker