বিশ্ব

ইসরায়েল-গাজা যুদ্ধ : ২৭তম দিনের পাঁচটি উল্লেখযোগ্য খবর

বৃহস্পতিবার ২৭তম দিন পার করছে ইসরায়েল ও গাজার যুদ্ধ। ৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস সীমান্ত পেরিয়ে ইসরায়েলে এক নজিরবিহীন হামলা চালায়। ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের মতে, সেই হামলায় প্রায় এক হাজার ৪০০ জন নিহত এবং ২৪০ জনেরও বেশি জিম্মি হয়েছে। সেদিন থেকেই যুদ্ধ শুরু হয়।

ইসরায়েল ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে লাগাতারভাবে বোমাবর্ষণ শুরু করে এবং সেনা পাঠায়। হামাস শাসিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, ইসরায়েলি হামলায় এখন পর্যন্ত তিন হাজার ৭৬০ শিশুসহ ৯ হাজার ৬১ জন নিহত হয়েছে।

ইসরায়েল ও গাজার যুদ্ধে গত ২৪ ঘণ্টার পাঁচটি উল্লেখযোগ্য খবর :

বিদেশিদের গাজা ত্যাগ
বৃহস্পতিবার গাজা থেকে আরো বিদেশি পাসপোর্টধারী এবং দ্বৈত নাগরিকরা মিসরে প্রবেশ করেছে। এদিন দ্বিতীয় দিনের জন্য রাফাহ ক্রসিং যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চল থেকে পালাতে চাওয়া লোকদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়।

ক্রসিংয়ে গাজার পাশের কর্মকর্তা ওয়ায়েল আবু মোহসেন বলেছেন, ‘বিদেশি পাসপোর্টধারী ১০০ যাত্রী বহনকারী দুটি বাস’ সকালে টার্মিনালে প্রবেশ করে। পরে দলটি মিসরে প্রবেশ করে। সেখানকার কর্মকর্তারা তাৎক্ষণিকভাবে তাদের সংখ্যা নিশ্চিত করতে পারেননি।

মিসরীয় ও ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ৬০ থেকে ১০০ জনের মতো অসুস্থ এবং আহত মানুষের পাশাপাশি বৃহস্পতিবার ৪০০ বিদেশি ও দ্বৈত নাগরিক পার হওয়ার আশা করা হয়েছিল।

কায়রো বলেছে, তারা গাজা থেকে ৬০টিরও বেশি দেশের পাসপোর্টধারী ‘প্রায় সাত হাজার’ বিদেশি ও দ্বৈত নাগরিককে সরিয়ে নিতে সহায়তা করবে।

জাবালিয়ায় মৃত্যু
গাজার হামাস সরকার বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের সবচেয়ে বড় জাবালিয়া শরণার্থীশিবিরে ইসরায়েলি হামলায় দুই দিনে ১৯৫ জন নিহত হয়েছে।

সরকারি প্রেস অফিস জানিয়েছে, কর্মকর্তারা মঙ্গল ও বুধবার ক্যাম্পে ১৯৫ জন নিহত, ১২০ জন ধ্বংসস্তূপের নিচে নিখোঁজ এবং ৭৭৭ জন আহত বলে নথিভুক্ত করেছেন।

অন্যদিকে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী বলেছে, মঙ্গলবারের হামলায় একজন হামাস কমান্ডার নিহত হয়েছেন। তবে ফরাসি সরকার বেসামরিক মৃত্যুর বড় পরিসংখ্যান নিয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন বলে জানিয়েছে এবং জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয় এই হামলাকে যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে তুলনা করেছে।

পশ্চিম তীরে রক্তপাত
গাজার যুদ্ধের আবহে অধিকৃত পশ্চিম তীরেও অস্থিরতা বেড়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসকদের মতে, বৃহস্পতিবার ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর গুলিতে তিন ফিলিস্তিনি নিহত এবং ফিলিস্তিনিদের গুলিতে একজন ইসরায়েলি নিহত হয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, রামাল্লা শহরের কাছে এল-বিরহে ইসরায়েলি অভিযানের সময় দুই ফিলিস্তিনিকে এবং উত্তরের শহর কলকিলিয়ায় তৃতীয় একজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ছাড়া সোমবার বন্দুকের গুলিতে আহত হওয়া ১৪ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনিও মারা গেছে বলে মন্ত্রণালয় উল্লেখ করেছে। ৭ অক্টোবর থেকে সেনা বা ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে এ পর্যন্ত প্রায় ১৩০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।

অন্যদিকে ভূখণ্ডের উত্তর-পশ্চিমে ইনাভ বসতির কাছে গোলাগুলির সময় গাড়িতে এক ইসরায়েলি নিহত হয়।

‘বিরতি’তে বাইডেনের সমর্থন
মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বুধবার রাতে মিনেসোটা প্রচারাভিযানের অনুষ্ঠানে এক ব্যক্তির প্রশ্নের উত্তরে জানিয়েছেন, জিম্মিদের বের করে আনতে যুদ্ধে একটি মানবিক ‘বিরতি’ হওয়া উচিত।

হোয়াইট হাউস এর আগে সহায়তা বিতরণের পরিস্থিতির জন্য ‘মানবিক বিরতির’ আহ্বান জানালেও এখনো পর্যন্ত তারা যুদ্ধবিরতি নিয়ে আলোচনা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন শুক্রবার ইসরায়েলে আলোচনায় বসবেন। তারপর অন্যান্য আঞ্চলিক রাজধানীতে যাবেন। কারণ ওয়াশিংটন উত্তেজনা কমাতে ‘জরুরি ব্যবস্থা’ চায় বলে তার কার্যালয় জানিয়েছে।

গাজায় আটকা আহতরা
ডক্টরস উইদাউট বর্ডারস (এমএসএফ) অনুসারে, ‘গুরুতরভাবে আহত’ লোকদের মিসরে সরিয়ে নেওয়ার পরও ২০ হাজারেরও বেশি আহত মানুষ এখনো গাজায় আটকা পড়ে আছে।

এমএসএফ বলেছে, ‘অবরোধের কারণে গাজায় এখনো ২০ হাজারেরও বেশি আহত মানুষ সীমিত আকারে স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে।’

Author


Discover more from MIssion 90 News

Subscribe to get the latest posts to your email.

সম্পর্কিত সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এছাড়াও পরীক্ষা করুন
Close
Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker