রাজনীতি

৭ জানুয়ারি জনগণের টাকা অপচয়ের নির্বাচন হবে : এবি পার্টি

া ও জনগণের টাকা অপচয়ের নির্বাচন। ইতিমধ্যে সব গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল এই পাতানো নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে। জনগণকে বলব, এই নির্বাচন বর্জন করুন, কেউ ভোট দিতে যাবেন না। জনগণ যাতে নিজের পছন্দমতো প্রার্থীকে ভোট দিতে পারে আমরা সে অধিকার আদায়ে শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে লড়াই করে যাব।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে বিজয়নগরস্থ দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে ‘ক্ষুব্ধ জনতার’ মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

ক্ষুব্ধ জনতার মিছিলটি এবি পার্টির কেন্দ্রীয় অফিস থেকে শুরু হয়ে কাকরাইল, বিজয়নগর, পল্টনসহ রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বিজয়-৭১ চত্বরে এসে সমাবেশে মিলিত হয়। এতে বক্তব্য দেন যুগ্ম আহ্বায়ক প্রফেসর ডা. মেজর (অব.) আব্দুল ওহাব মিনার, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম, সদস্যসচিব মজিবুর রহমান মঞ্জু ও যুগ্ম সদস্যসচিব ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ।

অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম আকাশচুম্বী।মানুষ নিজের পছন্দমতো খাবার কিনতে পারছে না। সে সময় লুটপাটের টাকা অপচয়ের মাধ্যমে সরকার হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় করে তামাশার নির্বাচন করছে

তিনি প্রহসনের নির্বাচনে জনগণকে ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সরকারের নতজানুতার কারণে সব নদী ও খাল-বিল শুকিয়ে গেছে। নৌকা চালানোর মতো পানি কোথাও নেই।তিনি জনগণকে এই তামাশার নির্বাচন বর্জন করে গণতন্ত্রের পক্ষে নিজেদের অবস্থান সুদৃঢ় করার আহ্বান জানান।

মজিবুর রহমান মঞ্জু বলেন, মন্ত্রী রাজ্জাক সাহেব মারফত আমরা জানলাম, এক রাতে সবার মুক্তির শর্তেও বিএনপি নেতারা সরকারের সঙ্গে আপস করেননি। জনগণের দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে তারা কারাগারের নির্যাতন মেনে নিয়েছেন। অথচ ১/১১’র সময় আওয়ামী লীগের বহু নেতা রিমান্ডে গিয়ে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে নানা ঘটনা ফাঁস করে দিয়েছেন। এখানেই বিএনপি-আওয়ামী লীগের পার্থক্য।

ব্যারিস্টার ফুয়াদ বলেন, আমেরিকাসহ আমাদের পশ্চিমা বন্ধুরাষ্ট্রগুলো বারবার অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করা, পোশাক শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি প্রদানসহ বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছে। এগুলো বাস্তবায়িত না হলে পোশাক রপ্তানি বন্ধ হওয়ার উপক্রম হবে। অর্থনীতিতে ধস নামবে। আমরা বারবার সতর্ক করার পরও সরকার নতুন বাকশাল কায়েম করার লক্ষ্যে একটি একতরফা প্রহসনের নির্বাচন আয়োজন করেছে। এই অবৈধ নির্বাচন এবি পার্টি মানে না।

সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন রানা, সিনিয়র সহকারী সদস্যসচিব আনোয়ার সাদাত টুটুল, যুব পার্টির আহ্বায়ক এ বি এম খালিদ হাসান, আব্দুল বাসেত মারজান, মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আলতাফ হোসাইন, সহকারী সদস্যসচিব শাহ আব্দুর রহমান, মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল হালিম খোকন, যুগ্ম সদস্যসচিব সফিউল বাসার, কেফায়েত হোসেন তানভীর, যুব পার্টি মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক তোফাজ্জল হোসেন রমিজ, যুব পার্টির যুগ্ম সদস্যসচিব মাসুদ জমাদ্দার রানা, সুলতানা রাজিয়া, যুব পার্টি ঢাকা মহানগর উত্তরের সদস্যসচিব শাহিনুর আক্তার শীলা, কেন্দ্রীয় সহকারী অর্থ সম্পাদক সুমাইয়া শারমিন ফারহানা, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আব্দুল হালিম নান্নু, সেলিম খান, আব্দুর রব জামিল, রিপন মাহমুদ, আমানুল্লাহ খান রাসেল, মশিউর রহমান মিলু, ফেরদৌসী আক্তার অপি, আমেনা বেগম, ছাত্রপক্ষের আহ্বায়ক মোহাম্মদ প্রিন্স, পল্টন থানা আহ্বায়ক আব্দুল কাদের মুন্সি, যাত্রাবাড়ী থানা সমন্বয়ক সি এম আরিফসহ কেন্দ্রীয় ও মহানগরীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা।

Author


Discover more from MIssion 90 News

Subscribe to get the latest posts to your email.

সম্পর্কিত সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এছাড়াও পরীক্ষা করুন
Close
Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker