কালিয়াকৈর

কালিয়াকৈরে মাছ চাষে আদর্শ মৎস্য খামারে সফলতা

পুনম শাহরিয়ার ঋতু, (গাজীপুর) প্রতিনিধি:

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ডুবাইল আদর্শ মৎস্য খামার লীজ নিয়ে মাছ চাষে ব্যাপকভাবে সফলতা অর্জন করেছেন। যার মাধ্যমে দেশের মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধির পাশাপাশি আমিষের চাহিদা পুরণ হচ্ছে।

জানা গেছে, ডুবাইল বিল আদর্শ মৎস্য খামার উপজেলার মধ্য পাড়া ইউনিয়নে গলাচিপা এলাকায় অবস্থিত একটি মৎস্য চাষ প্রকল্প। জলাশয়টি দীর্ঘ দিন যাবৎ পতিত অবস্থায় থাকার পর কেএনবি এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিঃ এর মালিক কামরুজ্জামান গত ২০২১ সালে স্থানীয় জমি মালিকদের নিকট থেকে (কেএনবি ফিসারিজ প্রজেক্ট) ডুবাইল বিল আদর্শ মৎস্য খামার লীজ গ্রহণ করে ব্যাপকভাবে মাছ চাষ কার্যক্রম শুরু করেন। যার মাধ্যমে দেশের মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধির পাশাপাশি আমিষের চাহিদা যেমন পুরণ হচ্ছে, স্থানীয়ভাবেও ব্যাপক কর্মসংস্থানেরও সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে স্থায়ীভাবে ৬৬ জন কর্মরত আছেন।

Image

প্রায় ৭২.৬৬ হেক্টর খামারটির জলায়তন ৫৬.৬৫ হেক্টর। খামারটিতে পুকুরের সংখ্যা ৫টি। কার্প-তেলাপিয়া-শিং-মাগুর চাষ পদ্ধতিতে শুরু করা প্রকল্পটিতে গত ২ বছরে গড় উৎপাদন হয় ২০৪১.৩৩ মে.টন। পরবর্তী ২০২৩ বর্ষে খামারটি মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে ২২৬৬ মে.টনে দাঁড়িয়েছে। যা স্থানীয় এবং জাতীয় মৎস্য উৎপাদনে যথেষ্ট আশাবঞ্জক। ডুবাইল বিল আদর্শ মৎস্য খামারে মাছের উৎপাদন স্থানীয় জনগোষ্টি, মাছ চাষিদের মধ্যে নতুনভাবে আশার আলো জ্বালিয়েছে।

স্থানীয় উপজেলা মৎস্য দপ্তরের নিয়মিত তত্ত্বাবধানে ও প্রকল্পে পরিচালনায় দায়িত্বরত ব্যক্তিদের প্রশিক্ষণ গ্রহণের মাধ্যমে পরিচালিত প্রকল্পটির উৎপাদন। গাজীপুর জেলার মৎস্য চাহিদা যেমন পূরণ করছে এবং স্থানীয় যুবক-প্রন্তিক চাষিদের মধ্যে প্রকল্পটির পরিচালিত মৎস্য চাষ পদ্ধতি গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করে তুলেছে।

Image

ডুবাইল আদর্শ মৎস খামারের মালিক কামরুজ্জামান জানান, দীর্ঘ বছর বিদেশী ছিলাম বিদেশ থেকে এসে ভাবলাম মাছ চাষ করে লাভবান করা সম্ভব ।তাই মাছ চাষে ঝুঁকে পড়ি একদিকে যেমন লাভবান হওয়া সম্ভব অপরদিকে দেশের মানুষের প্রাণীজ আমিষ পূরণ করা সম্ভব। তাই৫৬.৬৫ হেক্টর জমি লিজ নিয়ে মাছ চাষ করে লাভবান হচ্ছি। এই খামারি থেকে অনেক লোকের কর্মস্থানের সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ওয়াহেদুল আবরার জানান, উপজেলার ১২০০ হেক্টর জমিতে মাছ চাষ করা হচ্ছে। উপজেলার মাছের চাহিদা রয়েছে ১২০০০ মেট্রিক টন সেখানে এ বছর উৎপাদন হয়েছে ১৪ হাজার মেট্রিক টন। উপজেলার প্রাণীজ আমিষ ঘাটতি পূরণ করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চাহিদা পূরণ করছেন। এসব খামারিদের জন্য সারাদেশে প্রাণিজ আমিষের পূরণে ভূমিকা পালন করছেন।

Author


Discover more from MIssion 90 News

Subscribe to get the latest posts to your email.

সম্পর্কিত সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker